আওয়াজবিডি ডেস্ক
প্রকাশিত: মঙ্গলবার ১১ জুন ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের অব্যাহত হুমকিতে ন্যাটো ছাড়বে তুরস্ক?

তুরস্ক?

যুক্তরাষ্ট্রের অপ্রত্যাশিত দাবি ও অব্যাহত হুমকির মুখে ন্যাটো ছাড়তে পারে তুরস্ক। এমনই সতর্ক করেছেন একজন বিশ্লেষক। খবর তুরস্ক ভিত্তিক গণমাধ্যম ইয়েনি সাফাকের।

স্টিফেন লেন্ডম্যান রোববার কানাডা ভিত্তিক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রির্সাচ অন গ্লোবালাইজেশনে একটি আর্টিকেল লেখেন। এতে তিনি বলেন, তুরস্কের সামরিক বাহিনী ন্যাটো বাহিনীতে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। তুরস্ক ন্যাটো থেকে বেরিয়ে যাওয়া জোটের জন্য গুরুত্বপূর্ণ আঘাত হবে।

লেন্ডম্যান বলেন, যদি অপ্রত্যাশিত মার্কিন দাবি ও হুমকি অব্যাহত থাকে, তবে এটা অনিবার্য হতে পারে।

তিনি এমন মন্তব্য করেছেন, যখন তুরস্কের সঙ্গে মার্কিন কৌশলগত ভবিষ্যৎ সম্পর্ক মোকাবেলা করতে হচ্ছে।

তুরস্ক ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে রাশিয়ার কাছ থেকে বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার চুক্তি করেছে।

সিরিয়ার গৃহযুদ্ধের সময় তুরস্কের দক্ষিণ সীমান্ত হুমকির মুখে পড়ে। এ সময় ওয়াশিংটন তুরস্ককে সতর্ক করে জানায়, তাদের বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা প্রয়োজন। এখন পর্যন্ত প্রস্তাবিত ব্যয়বহুল প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থার কথা জানায়।

এদিকে এপ্রিলে এক সাক্ষাৎকারে রেন্ড কর্পোরেশনের সিনিয়র রাষ্ট্রবিজ্ঞানী স্টিফেন ফ্লানাগান বলেন, তুরস্কের বর্তমান সময় নিয়ে মুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন।

২০১৩ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বলেছিল যে তুরস্ক অন্যান্য বিক্রেতাদের মাধ্যমে তার প্রতিরক্ষা চাহিদাগুলো সুরক্ষিত করতে পারবে না, বিশেষ করে রাশিয়া যেহেতু ২০১৬ সাল পর্যন্ত সিরিয়া যুদ্ধে দুই দেশের মধ্যে একে অপরের সঙ্গে দ্বন্দ্ব ছিল।

পরে তুরস্ক ইউরোপের বিকল্প হিসেবে বিশেষ করে ইতালি কিন্তু ২০১৭ সালে যখন রাশিয়া সুলভ মূল্যে এস-৪০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা বিক্রির প্রস্তাব দেয়, তুরস্ক সরকার এ ন্যায্য চুক্তির প্রস্তাবনায় স্বাক্ষর করে।

Loading...
  • আন্তর্জাতিক এর আরও খবর