বৃষ্টি কতটা ক্ষতি করেছে বাংলাদেশের?


ব্রিস্টল

যে যাই বলুক না কেন, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বিশ্বকাপে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের বিচারে ফেবারিট ছিল বাংলাদেশই। বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররাও খুব করে চাইছিলেন ম্যাচটা জিততে। তা তো চাওয়ারই ছিল। বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের লক্ষ্য নিয়ে এগোবেন আর এই শ্রীলঙ্কাকে হারাতে চাইবেন না, এমন কি হয়?

তবে সেসব কথা এখন ভিত্তিহীন। সত্যিটা হলো, বৃষ্টির কারণে মাঠেই গড়াতে পারেনি টাইগারদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচ। টানা দুই ম্যাচ হারার পর এ ম্যাচ দিয়ে জয়ের ফিরতে চেয়েছিল মাশরাফী-তামিমরা। কিন্তু তা আর হলো কই? তামিম ইকবালসহ অন্য যারা ছন্দে ফিরতে মরিয়া ছিলেন- এই ম্যাচে তাদেরও উপহার দিয়েছে একরাশ হতাশা। সেই সঙ্গে পয়েন্ট টেবিলের হিসেব-নিকেশও কঠিন হয়ে গেল বাংলাদেশ দলের জন্য।

পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা দল নিউজিল্যান্ডকে দিয়েই হিসেব করা যাক না। ফেবারিটের তালিকায় একটু পিছিয়ে থাকা কিউইরা ইতোমধ্যেই ৩ ম্যাচ জিতে নিয়ে আছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। পরের ৬ ম্যাচে ফেবারিট অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ আছে তাদের। তুলনামূলক শক্তিশালী বিধায় এদের সঙ্গে ব্ল্যাকক্যাপসরা যদি হারেও, তবুও তাদের সামনে থাকছে পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানের মতো প্রতিপক্ষ।

শক্তির বিচারে এদের বিপক্ষে এগিয়ে থেকেই মাঠে নামবে কেন উইলিয়ামসনের দল। আর ৩ ম্যাচে যদি তারা জয় নিশ্চিত করতে পারে তবে খুব সহজেই সেমিফাইনালের পথ এগিয়ে যাবে নিউজিল্যান্ড। এদিকে ভারত, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া যে সেমিতে খেলবে তা তো সবাই কায়মনোবাক্যে মেনেই নিয়েছে।  

বাংলাদেশের সামনে এখন তাই সমীকরণ শেষ পাঁচ ম্যাচে করা যাবে না কোনো ভুল। হয়ত জেতা লাগতে পারে সবগুলো ম্যাচই। এদিকে বাংলাদেশের জন্য অপেক্ষা করছে শক্তিশালী ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার প্রতিপক্ষ। এ ছাড়াও ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তানও ছেড়ে কথা বলবে না টাইগারদের।

এই মুহূর্তে তাই টুর্নামেন্ট জমিয়ে দিতে এগিয়ে আসতে হবে পাকিস্তান ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে। বড় ম্যাচে জয়ের সামর্থ্য আছে তাদের। ইংল্যান্ড-পাকিস্তান ম্যাচের মতো কয়েকটি 'আপসেট' তাই পাল্টে দিতে পারে পুরো টুর্নামেন্টের চিত্র। টাইগার ভক্তরা মনে মনে এখন সেই প্রার্থনা জপতেই ব্যস্ত।

যদিও বাংলাদেশের নিজেদের পক্ষেই সামর্থ্য আছে বড় ম্যাচ জেতার। কিন্তু তারপরও ভয়টা থেকেই যাচ্ছে। এই মুহূর্তে তাই অনেকের মধ্যেই আফসোস নতুন করেছে জেগে উঠেছে, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটার জন্য! কাছাকাছি গিয়েও হেরে যাওয়া ম্যাচটা জিতে গেলে এখন কী দারুণ অবস্থানেই না থাকত বাংলাদেশ!

তবে সব কথার শেষ কথা, যা হয়নি তা নিয়ে ভেবে আর লাভ নেই। এখন বোলিং আর ফিল্ডিংয়ে শক্তি বাড়ায়ে বাকি ম্যাচগুলো জয়ের জন্য খেলে যেতে হবে। আর এখনো নিজেদের সেভাবে তুলে ধরতে না পারা তামিম-সৌম্য-মাহমুদউল্লাহদেরও ছোটাতে হবে রানের ফুলঝুরি। সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে সব কিছুই সম্ভব টাইগারদের পক্ষে। পুরো দেশবাসীও এখন তাই সেদিকেই তাকিয়ে।