শ্রমিক কল্যাণের দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ


আত্মসাতের অভিযোগ
ফাইল ছবি

সিলেটের পরিবহন শ্রমিক নেতা সেলিম আহমদ ফলিকের বিরুদ্ধে পরিবহন শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিলের প্রায় দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

টাকা উদ্ধারে কয়েক সপ্তাহ ধরে দেন-দরবারের চূড়ান্ত রূপ নেয় সংঘর্ষে।

পুলিশের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি আপাতত শান্ত হলেও শ্রমিকরা চায় তাদের ন্যায্য হিস্যা। সংঘর্ষ কোনো জমি দখল কিংবা আধিপত্য বিস্তার নিয়ে নয়। শ্রমিকদের তিলে তিলে জমানো কল্যাণ তহবিলের বিরাট অঙ্কের টাকার হিসাব বাংলাদেশ পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সহসভাপতি ও সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিক দিতে না পারায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন শ্রমিকেরা।

বিশেষ করে করোনার লকডাউনে বেকার হয়ে পড়া শ্রমিকেরা ঈদ উপহার হিসেবে খাদ্যসামগ্রী চাইলে সেলিম আহমদ ফলিক এতে রাজি হননি। এমন অভিযোগ করেন শ্রমিকেরা। পরিবহন শ্রমিক নেতারা বলছেন, ঈদের আগে বললাম সভাপতি সাহেব আমাদের ঈদের বাজারের ব্যবস্থা করেন। তখন বলেন, শ্রমিকদের বাপের টাকা আছে নাকি।

সেই টাকার হিসাব নিয়ে সমস্যা। এই টাকার হিসাব-নিকাশ নিয়ে কয়েক সপ্তাহ ধরে পরিবহন নেতা ফলিকে সঙ্গে দেনদরবার করে টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে কথা বলতে চাইলে ফলিককে কথা বরতে দেননি তার গ্রুপের নেতারা। তবে অপর এক পরিবহন নেতা বলেন, বিষয়টি নিয়ে বসলে সমাধান বের হযে আসবে।

সিলেটের ট্রাক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. সেলিম বলেন, কল্যাণ তহবিল নিয়ে বসলে এটার সমাধান হয়ে যাবে। পরিবহন শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের টাকা উদ্ধারে শ্রমিকরা যাতে আর সংঘাতে না জড়ায় সে জন্য সিলেট কেন্দ্রিয় বাস টার্মিনালে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এসএমপি দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খায়রুল ফজল বলেন, যতক্ষণ শান্তি শৃঙ্খলা ফিরে না আসবে ততক্ষণ আমরা এখানে থাকব।

শ্রমিকেরা জানান, ২০ বছর ধরে একই পদে থেকে ফলিকের কাছে তহবিলের প্রায় আড়াই কোটি টাকার হিসাব চাওয়া হলে তিনি ৪১ লাখ টাকার হিসাব দেন।

রেদওয়ানুল/আওয়াজবিডি

ads