অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ইতিহাসে নতুন রাণী


অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ইতিহাসে নতুন রাণী

বয়স মাত্র ২১। আর এই বয়সেই গ্র্যান্ড স্লাম জিতে নজির গড়লেন সোফিয়া কেনিন। শনিবার অস্ট্রেলিয়া ওপেনে  দুবারের মেজর চ্যাম্পিয়ন মুগুরুজাকে মাটি ধরিয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম জিতলেন মার্কিন টেনিস তারকা।

এদিন মেলবোর্ন পার্কে মহিলাদের ফাইনালে মুগুরুজাকে ৪-৬, ৬-২, ৬-২ সেটে হারান কেনিন। শুরুটায় ধাক্কা খেলেও দ্বিতীয় গেমে ঘুরে দাঁড়ান ২১ বছরের তরুণী। শেষ গেমে পরপর পাঁচ পয়েন্ট ঝুলিতে ভরে জয় ছিনিয়ে নেন তিনি। তরুণীর কাছে রীতিমতো অসহায় দেখায় অভিজ্ঞ মুগুরুজাকে।

স্বাভাবিকভাবেই ট্রফি জিতে উচ্ছ্বসিত কেনিন বলেন, এটাই আমার প্রথম বক্তব্য রাখা। তবে আমি আমার সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করছি। স্বপ্ন অবশেষে সত্যি হল। বিশ্বাসই করতে পারছি না। এরপর দর্শকদের উদ্দেশে বলেন, আপনারও যদিও কোনও স্বপ্ন থাকে, তাহলে নিজের সেরাটা দিন। স্বপ্ন সত্যি হবেই।

১২ বছর পর কনিষ্ঠতম তারকা হিসেবে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে চ্যাম্পিয়ন হলেন কেনিন। এর আগে ২০০৮ সালে এই মঞ্চে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন ২০ বছরের মারিয়া শারাপোভা। মেয়ের খেলা দেখার সময় গ্যালারিতে হাজির ছিলেন বাবা অ্যালেক্সও।

ছোটবেলায় মেয়েকে কোচিংও করিয়েছিলেন তিনি। তাই এমন মঞ্চে কঠিন লড়াইয়ে মেয়ের পারফরম্যান্স দেখার সময় বুক দুরুদুরু করছিল তার। তবে শেষমেশ চওড়া হাসি ফোটে তার মুখে।

চলতি অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের তৃতীয় রাউন্ড থেকেই ছিটকে গিয়েছিলেন মার্কিন তারকা সেরেনা উইলিয়ামস। তার সান্ত্বনা একটাই। কিংবদন্তির দেশের খেলোয়াড়ই শেষ হাসি হাসলেন। তবে সাম্প্রতিক অতীতে সেভাবে শিরোনামে আসেনি কেনিনের নাম। র্যাঙ্কিংয়েও প্রথম পঞ্চাশে ছিলেন না তিনি। কিন্তু কঠোর পরিশ্রম আর আত্মত্যাগে চলতি টুর্নামেন্টে ছবিটা একেবারে বদলে ফেলেন তরুণী।

একের পর এক টেনিস তারকাদের হারিয়ে ফাইনালে পৌঁছে যান। তারপরই তৈরি হয় ইতিহাস।

এই জয় নিঃসন্দেহে তাকে খ্যাতির শিখরে পৌঁছে দিল। এই সৌজন্যে একলাফে র্যাঙ্কিংয়ে অনেকখানি উপরে উঠতে পারেন তিনি। আশা করা হচ্ছে, সোমবার প্রকাশিত হতে চলা ডব্লিউটিএ র্যাঙ্কিংয়ে সাত নম্বরে জায়গা করে নেবেন কেনিন।

ads