গণআন্দোলন শুরু করতে আর দেরি নয়: রিজভী


রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, দুর্বার গণআন্দোলনের মধ্য দিয়ে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে। এই গণআন্দোলন গড়ে তুলতে আর দেরি করা হবে না।

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) নয়াপল্টনে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে হওয়া সব মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মিছিল শেষে সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য এবং দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জন্য আমাদের দুর্বার গণআন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এই গণআন্দোলন শুরু করতে আর বিলম্ব করা যাবে না, এ মূহুর্তে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। কারণ বর্তমান সরকার অগণতান্ত্রিক সরকার, অনির্বাচিত সরকার। এই সরকারের মাধ্যমে সুষ্ঠু নির্বাচন এবং গণতন্ত্রের অধিকার ফিরে পাওয়া সম্ভব নয়। দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্তির মধ্য দিয়ে দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবে, মানুষের ব্যক্তিস্বাধীনতা ফিরে আসবে। দেশে যে গুম-খুনের আতঙ্ক বিরাজ করছে, সেই ভয়াল পরিস্থিতি থেকে মানুষ উদ্ধার হবে।

এ সময় সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, এই সরকার দেশের অর্থনীতিটা ধ্বংস করে দিয়েছে। অসংখ্য বেকার তরুণ হতাশার মধ্যে নিমজ্জিত। চারদিকে শুধু নৈরাজ্যের বিভীষিকা। দেশের জনগণ এক ভয়ঙ্কর অশান্তির মধ্যে দিনযাপন করছে। ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী ভয় দেখিয়ে দেশ শাসন করছে। কিন্তু এই ভয়কে উপেক্ষা করেই দেশের জনগণ এই সরকারের পতনের জন্য এখন ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

মিছিলে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক কেন্দ্রীয় সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মনির, সাবেক সদস্য ডা. জাহিদুল কবির, সাবেক ছাত্রনেতা আহসান উদ্দিন খান শিপন, মামুন ভূঁইয়া, মেহেবুব মাসুম শান্ত, কায়সার আপেল, নাজমুল হুদা, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহসভাপতি ওমর ফারুক কাওসার, যুগ্ম সম্পাদক শাহ নেওয়াজ, সহসাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান রনি, সরিষাবাড়ী উপজেলার সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান হীরু প্রমুখ।

ads