থমথমে অবস্থা হরিপুরে, ৩য় দিনেও চলছে ১৪৪ ধারা


থমথমে অবস্থা হরিপুরে, ৩য় দিনেও চলছে ১৪৪ ধারা

আওয়ামী লীগের দু-গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কায় ঠাকুরগাঁও হরিপুর উপজেলায় রাজনৈতিক দলের সকল সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে ১৪৪ ধারা জারি করেছেন প্রশাসন।

শুক্রবার হরিপুর উপজেলায় ৩য় দিনের মতো চলছে এই অনিদিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা। এর ফলে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে হরিপুর উপজেলায়।এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় অনিদিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেন হরিপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল করিম।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই জেলার হরিপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগের কমিটিতে সদস্য বাতিল ও অন্তর্ভুক্তিকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ চলছে। গত বুধবার হরিপুর উপজেলার বকুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র করে দলটির দুই পক্ষ লাঠি-সোটা নিয়ে মুখোমুখি অবস্থান নেয়। পরে সংঘর্ষ এড়াতে সকাল ১১টা থেকে চাপধা বাজার ও আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করে প্রশাসন। এর জের ধরেই বুধবার পুরো উপজেলা জুড়ে অবস্থান নেয় দু-গ্রুপের নেতাকর্মীরা। সংঘর্ষের আশংকা ও জনসাধারণর জানমালের নিরাপত্তা বিঘেœর আশংকায় বুধবার সন্ধ্যায় অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ধারা জারি করেন প্রশাসন।

হরিপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার আব্দুল করিম জানান, রাজনৈতিক সকল ধরনের সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ করে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। উপজেলার কোন দলীয় কার্যালয়ে ৫ জনের অধিকার সমবেত হতে পারবে না। এছাড়া বাকি সব কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। পরিস্থিতি স্থিতিশিল হলে ১৪৪ ধারা তুলে নেওয়া হবে।

হরিপুর থানার ওসি আমিরুজ্জামান মোবাইলফেনে বলেন, পুলিশ তৎপর রয়েছে। যে কোন পরিস্থিতি সামাল দিতে আমরা প্রস্তুতি রয়েছি।

উল্লেখ্য, হরিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে অনুমোদন ছাড়াই নতুন করে সদস্য অন্তর্ভুক্ত করায় পর থেকেই রাজনৈতিক অস্থিরতা শুরু হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানান, আওয়ামী লীগের কিছু সুবিধাবাদী নেতার কারনে এ ধরনের পরিস্থিত সৃষ্টি হয়েছে। ত্যাগী নেতারা বাদ দিয়ে একটি পক্ষ গায়ের জোরে দলীয় সকল প্রকার কার্যক্রম চালিয়ে যেতে চায়। যারা দীর্ঘ দিন ধরে আওয়ামী লীগের হাল ধরে আছে তাদের বাদ দিয়ে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান তারা।

এএমজে/আওয়াজবিডি