ফিলাডেলফিয়ায় লুটপাটের শিকার বাংলাদেশিরাও


লুটপাট

যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনিয়াপলিস শহরে বাংলাদেশির রেস্টুরেন্ট জ্বালিয়ে দেওয়ার পর একই পরিস্থিতির অবতারণা হয়েছে ফিলাডেলফিয়া শহরেও। রবিবার এই সিটির কয়েকশত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙচুরের পর সমস্ত মালামাল লুট করা হয়। এরমধ্যে এক বাংলাদেশির দুটি স্বর্ণ ও মোবাইল ফোনের দোকানসহ মোট ৩৬ দোকান লুটে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

ফিলাডেলফিয়ার ৪০৮৯, লেনক্যাস্টার এভিনিউর এবং ১১৩ ওয়েস্ট সেলটন এভিনিউতে অবস্থিত মমি জুয়েলার্স এ্যান্ড পারফিউম ইনক নামক প্রতিষ্ঠানদ্বয়ের মালিক কামরুল ইসলাম জানান, রবিবার রাতে কারফিউ চলাকালে তালাবদ্ধ দোকান ভেঙে সবকিছু লুটে নেয়া হয়েছে। দুই দোকানে কমপক্ষে ৬ লাখ ডলারের মালামাল ছিল বলে পুলিশে অভিযোগ করেছেন। দীর্ঘ ২৪ বছরের পুরনো দোকান দুটি ছিল তার পরিবারের একমাত্র অবলম্বন।

শুধু তাই নয়, নোয়াখালীর সেনবাগে টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট স্থাপন করেছেন এখানকার উপার্জিত অর্থেই। এখন সবকিছুই হুমকির মুখে পড়লো।শহরটির আপার ডারবি টাউনশিপের কাউন্সিলম্যান শেখ সিদ্দিক সোমবার রাতে জানান, সিটির বড় বড় কয়েকটি চেইনস্টোরসহ কয়েকশত দোকান পাটে ভাঙচুর ও লুটতরাজ হয়েছে। আমরা সবগুলো পরিদর্শন করেছি।

ক্ষতিপূরণ আদায়ের কৌশল উদ্ভাবনের জন্যে শীঘ্রই সিটি অব ফিলাডেলফিয়া এবং আপার ডারবি টাউনশিপের যৌথ সভা হবে। সিটিতে কারফিউ অনির্দিষ্টকালের জন্যে বহাল থাকবে। লুটতরাজে লিপ্ত দুর্বৃত্তদের আচরণে সবাই ব্যথিত এবং ক্ষুব্ধ।

ads