আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত থাকুন: নিউইয়র্কে হেলাল খান


হেলাল খান

বিএনপির সাংস্কৃতিক ফ্রন্ট জাসাস’র কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি ও চিত্রনায়ক হেলাল খান নিউইয়র্কে এক সমাবেশে সকলকে আন্দোলনের প্রস্তুতি গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন।

জাসাসের প্রবাসী নেতাদের এ সমাবেশে হেলাল খান আরও বলেন, “এই প্রবাস থেকেও আন্দোলনের ঢেউ তুলতে হবে আন্তর্জাতিক জনমত সুসংহত করতে। ১/১১ পরবর্তী সময়ের মতো মার্কিন কংগ্রেসকে বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে এগিয়ে যাবার ক্ষেত্র তৈরি করতে হবে বিএনপি নেতা-কর্মীদেরকেই। ”

গত উইকেন্ডে নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে একটি রেস্টুরেন্টে জাসাসের সর্বস্তরের নেতাকর্মীর সঙ্গে মতবিনিময়কালে হেলাল খান আরও বলেন, “বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনকে তছনছ করার মতলবে দেশ ও প্রবাসে বহুমুখী ষড়যন্ত্র চলছে।

এ অবস্থায় শহীদ জিয়ার আদর্শে উজ্জীবিত এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে সকলের উচিত যেকোনও ত্যাগের বিনিময়ে ঐক্যবদ্ধ থাকা। বিএনপির কান্ডারি তারেক রহমানের নির্দেশ অনুযায়ী আমরা কাজে অঙ্গীকারাবদ্ধ। শিগগিরই শুরু হবে শান্তিপূর্ণ উপায়ে দুর্বার আন্দোলন।

যে আন্দোলনে মুক্ত হবেন গণতন্ত্রের মা এবং বাংলাদেশের গণতন্ত্র। ”

এ সময় তিনি যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের অনুমোদিত কমিটির সঙ্গে সকলকে মিলেমিশে কাজ করার আহ্বান জানান।

যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সভাপতি আবু তাহেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভা পরিচালনা করেন সেক্রেটারি কাওসার আহমেদ।

অতিথি হিসেবে কথা বলেছেন যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা এম এ বাতিন।

বাতিন উল্লেখ করেন, এই প্রবাসেও ষড়যন্ত্রকারীরা বাকশালের এজেন্ট হিসেবে ঢুকে পড়েছে বিএনপিতে। ওরা শহীদ জিয়ার শাহাদৎ বার্ষিকীর সমাবেশ বানচালের অপচেষ্টা চালিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র জাসাস, যুবদল, ছাত্রদল, তারেক পরিষদ, মহিলা দলের কর্মীরা তা রুখে দিয়েছে। ওদের ব্যাপারে কেন্দ্রকেও সজাগ থাকা দরকার।  
এ মতবিনিময় সভায় পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয় ব্রকলিন বরো জাসাসের নতুন কমিটির কর্মকর্তাদেরকে।   তারা হলেন: সভাপতি-আব্দুল মোমেন সোহেল এবং সেক্রেটারি-কাজী মাসুম।

অপর কর্মকর্তাদের মধ্যে ছিলেন আলাউদ্দিন, জমসেদ, রুবেল, হুমায়ূন কবির।

এ সময় নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরও ছিলেন মোশারফ হোসেন সবুজ, রাশিদা বেগম, তানবির রিয়া, আলাউদ্দিন, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সার্বিক তত্বাবধানে বিভিন্ন স্টেট কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া চলছে বলে কেন্দ্রীয় নেতাকে অবহিত করেন আবু তাহের।

বাংলাদেশকে স্বৈরাচার মুক্ত করতে সাংগঠনিক ঐক্যের স্বার্থে জাসাসের প্রতিটি সমর্থক কাজ করছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।