পুলিশ দম্পতির নির্যাতনে রক্তাক্ত অসহায় সংখ্যালঘু পরিবার


আহত

সুনামগঞ্জ পৌর শহরের মল্লিকপুর পুলিশ লাইনস সংলগ্ন বিসিক শিল্প নগরীর মাঠে শিশুদের ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে পুলিশের এসআই আব্দুর রহমান তার পার্শবর্তী বাসিন্দা আমুদ বর্মনের পুত্র শুভঙ্কর বর্মন (১০)কে নির্মমভাবে পিঠিয়ে আহত করা হয়।

শিশুটির আর্তচিৎকার শুনে তার পিসি জবা বর্মন ও মা শিউলী বর্মন সন্তানটিকে রক্ষা করতে এগিয়ে এলে এসআই আব্দুর রহমান ও তার স্ত্রী (পুলিশ সদস্য) উভয়ে মিলিতভাবে তাদেরকে ও (৩ জনকে) লাঠিসোটা দিয়ে পিঠিয়ে আহত করেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি বিকেলে। পুলিশ সদস্যদের অত্যাচারে শিউলী রানী বর্মণের কোলে থাকা ৮মাসের কন্যা সন্তান মিষ্টি ও রেহাই পায়নি।

পুলিশ দম্পতি তাদের হাতে থাকা লাঠি দিয়ে নিরীহ সংখ্যালঘু পরিবাবের ৪ সদস্যের মাথা, নাক,মুখ সহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত করে জখম করে। তাদের বাচাঁতে প্রতিবেশীরা ছুটে আসলে পুলিশ দম্পতি তাদেরকেও লাঠিপেটা করে এলাকায় ভীতিকর পরিবেশ তৈরি করে।এ ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় হতাশ আহত পরিবারের সদস্যরা।

খবর পেয়ে ওয়ার্ড কমিশনার আহমদ নুর, বাড়ীর মালিক নজির মিয়া, আহত প্রতিবেশী আব্দুল করিমসহ এলাকাবাসী এগিয়ে এসে অবস্থায় উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

আহত শিউলী ও জবার নাক ও মাথায় গুরুতর আঘাত থাকায় তাদেরকে এক্সরে করার পরামর্শ দেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। অসহায় দরিদ্র সংখ্যালঘু পরিবারটি অর্থাভাবে চিকিৎসা নিতে না পেরে এবং নির্যাতনকারী পুলিশ দম্পতির প্রাণনাশের হুমকি ধমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন। অবশেষে সুনামগঞ্জ জেলা লিগ্যাল এইড অফিসের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন তারা।

এ ব্যাপারে জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রশিকিউটর (পিপি), সাবেক সাংসদ অ্যাড.শামসুন্নাহার বেগম শাহানা রব্বানী আহতদের সুষ্ঠু চিকিৎসা নিশ্চিতের নির্দেশ দিয়ে অনতিবিলম্বে এরূপ জঘন্য নির্যাতনকারীদের সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

আলাল/এসএস/আওয়াজবিডি

ads