ঠাকুরগাঁওবাসীকে সুখবর দিলেন প্রধানমন্ত্রী


প্রধানমন্ত্রী

অনেকদিন ধরে পড়ে থাকা ঠাকুরগাঁও বিমান বন্দর চালু হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি ঠাকুরগাঁওবাসীকে এই সুখবর দেন। উল্লেখ্য ওই বিমানবন্দরটি চালু করতে দীর্ঘদিন যাবত দাবি জানিয়ে আসছে ঠাকুরগাঁওবাসী।

দেশের বন্দর বিদেশিদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া নিয়ে সমালোচনার জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পোর্ট কেউ একা ব্যবহারের জন্য তৈরি করে না। নেপাল, ভারত, ভুটান আমাদের বন্দর ব্যবহার করতে পারে। সেক্ষেত্রে আমাদের শুল্ক আয় হবে। সে কারণেই ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর নেপাল ও ভুটানকে ব্যবহারের জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আঞ্চলিক সহযোগিতা না বাড়ালে উন্নতি হবে কীভাবে। কেউ তো আর একা একা উন্নতি করতে পারে না।

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী তার সফর ও সম্পাদিত চুক্তি নিয়ে বক্তব্য রাখেন। তবে সাংবাদিকদের দিক থেকে ঘুরে ফিরে আবরার হত্যা নিয়েই প্রশ্ন এসেছে সবচেয়ে বেশি। সরকার ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ চাইলে এমন সিদ্ধান্ত নিতে পারে। কিন্তু একটি ঘটনার প্রেক্ষিতে সার্বিকভাবে ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করে দেওয়ার মতো সিদ্ধান্ত সরকার নিবে না।

ছাত্রদের দলীয় রাজনীতি বন্ধ করার ব্যাপারে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতি নিষিদ্ধ করা সামরিক স্বৈরাচারদের মানসিকতা। নেতৃত্ব তৈরিতে ছাত্র রাজনীতির গুরুত্বের কথা উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, আমি নিজেও ছাত্র রাজনীতি করে এসেছি। তবে বুয়েটের সিন্ডিকেট চাইলে এরকম কোনো সিদ্ধান্ত নিতেই পারে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও হল থেকে মাস্তানদের ধরার নির্দেশ দেওয়া হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “জনগণের টাকায় হলে থাকবে আর মাস্তানি করবে তা হতে পারে না।”

এএমজে/আওয়াজবিডি