ভিআইপিদের কেউ ছাড়চ্ছেন না করোনা


করোনা- প

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস কাউকে ছাড় দিচ্ছে না। ইতোমধ্যেই কাবু করে ফেলেছে বিভিন্ন দেশের রাজপুত্র, রাজকন্যা, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী-এমপি, সাংবাদিকসহ অনেক শ্রেণি-পেশার মানুষকে। বাংলাদেশেও করোনাভাইরাস হানা দিয়েছে সংসদ সদস্যের ঘরে।

এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন তিনজন এমপি। যদিও এদের দুজন এরই মধ্যে সুস্থ হয়ে গেছেন। তবে করোনা থেকে এখনও সুরক্ষিত দেশের মন্ত্রিসভা।

কিন্তু যেভাবে তাদের বাসা, চলাচলের সঙ্গী অর্থাৎ গানম্যান বা কর্মস্থলের পাশের লোকজন সংক্রমিত হচ্ছেন, তাতে যেন করোনা উড়ে বেড়াচ্ছে মন্ত্রীদের আশপাশে।

এক্ষেত্রে মন্ত্রীদের আরও সচেতন হয়ে চলার কথাই বলছেন বিশেষজ্ঞরা। মন্ত্রিসভা এখন পর্যন্ত সুরক্ষিত থাকলেও করোনা এরই মধ্যে আক্রান্ত করেছে তিনজন সংসদ সদস্যকে।

এরা হলেন- চট্টগ্রাম-৬ আসনের এমপি এবং রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, নওগাঁ-২ আসনের এমপি শহীদুজ্জামান সরকার এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ এবাদুল করিম বুলবুল। প্রথম দুজন এরই মধ্যে সুস্থ হয়ে গেলেও এখনও করোনার সাথে লড়াই করছেন বিকন ফার্মার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বিকন ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবাদুল করিম বুলবুল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন সচিব বলেন, করোনা যেভাবে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের আশপাশের লোকদের আক্রান্ত করছে, তা দেখে মনে হয় করোনা তাদের দরজায়ও কড়া নাড়ছে। সেজন্য তাদের আরও সচেতন হয়ে চলতে হবে। মেনে চলতে হবে স্বাস্থ্যবিধি।

জানা গেছে, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদের মেয়ে জেবা জামান চৌধুরীর সঙ্গে সম্প্রতি এস আলম গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুস সামাদ লাবুর ছেলে আতিকুল আলমের বাগদান সম্পন্ন হয়। লকডাউনের মধ্যেই ভূমিমন্ত্রীর চট্টগ্রামের বাসায় এই বাগদান হয়।

ওই বাগদানে অংশ নেয়া এস আলম গ্রুপের পরিচালক মোরশেদুল আলমসহ দুইজন ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইতোমধ্যেই মারা গেছেন । ওই বাগদানের অনুষ্ঠান থেকে আরও কয়েকজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা বাসা বেঁধেছে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সরকারি বাসার চার কর্মীর শরীরে । যদিও তাদের অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানা গেছে। এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের গানম্যানের দেহেও।

ইতোমধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। মন্ত্রীদের বাসার লোক বা চলাচলের সঙ্গীদের পাশাপাশি করোনা বাসা বেঁধেছে অনেকের কর্মস্থলের সহযোগীর শরীরেও।

সোমবার (১ জুন) বিকেলে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম প্রধান জানিয়েছেন তার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কথা। তার আগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফ মাহমুদ অপু এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ইফতেখার হোসেনের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার কথা জানা যায়।

রেদওয়ানুল/আওয়াজবিডি

ads