বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তি; ইবি ছাত্র বহিষ্কার


ইবি ছাত্র বহিষ্কার

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনের বিচার নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য করেছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আরবি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থী। ঐ শিক্ষার্থীর নাম আশিক পাটোয়ারী।

বুধবার (৮ এপ্রিল) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একটি পোস্টে তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচারকে ব্যবসা এবং বঙ্গবন্ধুকে ফেরেস্তারূপে হাজির করা হয়েছে বলে কটুক্তি ও ব্যাঙ্গ করেন। তবে ঐ শিক্ষার্থীর দাবি তার আইডি হ্যাক হয়েছিল।

ফেসবুক পোস্টে আশিকুল ইসলাম পাটোয়ারী বলেন, "বঙ্গবন্ধুকে ফেরেশতারূপে হাজির করা হইতেছে সর্বত্র, ভালো। তো আপনাদের এখন কর্তব্য হইলো- এই ফেরেশতার আদর্শ অনুসরণ করা। যেহেতু দাবী করেন, আপনারা ফেরেশতার আদর্শের দল, গঠনে-গাঠনে। আদর্শ অনুসরণ মানে হইলো- ফেরেশতার দ্বারা দুর্নীতি, মিথ্যা দূরে থাক কোন পাপ কাজ হওয়াই সম্ভব না, আপনার মধ্যেও এগুলা ফুটে উঠা। অথচ, আপনি হইতেছেন তার পুরা উল্টো! আপনি দুনিয়ার বেবাক পাপ কাজগুলা কইরা ফেরেশতা দ্বারা পাপমুক্তি নিতেছেন। যেন খ্রিষ্টধর্মের ওই বিশ্বাস অনুযায়ী যে, যিশু নিজে মরে তার সকল অনুসারীদের পাপমুক্তির সত্যায়ন করে গেছেন।

তো, এখন অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, ফেরেশতার এই সিলটাই সকল দুর্নীতি, অন্যায়, জুলুমের আখড়ায় পরিগণিত হইতেছে। অথচ, হওয়ার কথা ছিল তার পুরো উল্টা! তো এখন যতই বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার নিয়ে হৈহৈ দেখতেছেন, তার অধিকাংশই ব্যবসা, নিজের চলতি কিংবা ভবিতব্য পাপকাজগুলারে বৈধ করা করার প্রচেষ্টা।

তো এখন আমাগো কী করবার আছে? আমরা যারা ফেরেশতা না, স্রেফ বঙ্গবন্ধুরে ভালোবাসি, বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার চাইতেছি সুদীর্ঘকাল ধইরা- মননে-মানসে, চিন্তায়-স্লোগানে, তারার।’’

অল্পসময়ের মধ্যেই পোস্টটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পরলে ওঠে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড়। তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার ও তার শাস্তি দাবি করে হতে থাকে অসংখ্য পোস্ট আর কমেন্ট।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী বলেন, "বিষয়টি অবগত হয়েছি। কটুক্তিকারীর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি অনুযায়ী দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।"

পরে বুধবার রাতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এসএম আব্দুল লতিফ সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে ঐ ছাত্রকে বহিষ্কারাদেশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ঐ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের ছাত্র আশিকুল ইসলাম পাটোয়ারী, রােল নং ১৬১১০২১ শিক্ষাবর্ষ ২০১৬-২০১৭ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্ম্পকে অবমাননাকর এবং মর্যাদাহানিকর মন্তব্য করে।

সামাজিক যােগাযােগ মাধ্যম ফেসবুকে এরূপ মন্তব্য জাতির পিতার প্রতি অসম্মানজনক যা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করেছে বিধায় উক্ত ছাত্র আশিকুল ইসলাম পাটোয়ারীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হলাে।

ঐ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, কেন তাকে চূড়ান্তভাবে বহিষ্কার করা হবে না তা বিশ্ববিদ্যালয় খােলার পর ০৭ কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানাের জন্য বলা হলাে।

এছাড়া সার্বিক বিষয়টি তদন্তপূর্বক রিপাের্ট পেশ করার জন্য উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী, প্রক্টর অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মনকে আহ্বায়ক করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করেছেন। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন, আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. রেহেনা পারভিন এবং পরিসংখ্যান বিভাগের সভাপতি ড. সাজ্জাদ হোসেন

উল্লেখ্য, এর আগে গত ৭ এপ্রিল বঙ্গবন্ধুর খুনের বিচার নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করায় বাংলা বিভাগের স্নাতকোত্তর শ্রেণীর তানজিনা সুলতানা ছন্দ নামের এক শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এসএম/আওয়াজবিডি

ads