মাস্ক-পিপিইর ঘাটতি নিয়ে বলায় মানসিক হাসপাতালে ভর্তি চিকিৎসক


চিকিৎসক

করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় স্বাস্থ্যকর্মীদের ব্যবহৃত মাস্ক ও পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্টের (পিপিই) ঘাটতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করায় বরখাস্ত করা হয়েছিল ভারতের চিকিৎসক সুধাকর রাওকে। এবার তাকে মানষিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, রাস্তায় একজন মাতালের উদভ্রান্ত আচরণের কথা শুনে তারা সেখানে উপস্থিত হন। তিনি রাস্তার ব্যারিকেড সরানোর চেষ্টা করছিলেন। রাস্তায় একটি মদের বোতলও ছুঁড়ে মেরেছিলেন। পুলিশ সেখানে পৌঁছানোর আগেই স্থানীয়রা তার হাত বেঁধে ফেলেছিল।

বিশাখাপত্তম পুলিশ কমিশনার আরকে মিনা বলেন, ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগ পর্যন্তও তারা জানতেন না যে ওই ব্যক্তি ডা. রাও। পুলিশের কাজে কাজে বাধা দেওয়া ও ক্ষতি করার অভিযোগে স্থানীয় একজন ডা. রাওয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ডা. রাওকে প্রথমে প্রাথমিক পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা ডা. রাওকে মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দিলে তাকে মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ প্রসঙ্গে ডা. রাওয়ের মা কাবেরি রাও জানান, তার ছেলের কোনো মানসিক সমস্যা নেই। তিনি বলেন, আমার ছেলে একজন নামী চিকিৎসক। চিকিৎসা সরঞ্জাম নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলার পর থেকেই তাকে নানা নির্যাতনের মুখোমুখি হতে হয়েছে। মানুষ যখন ফোন করে ছেলের ব্যাপারে জানতে চায়, তখন আমার খুব খারাপ লাগে। কয়েক সপ্তাহ ধরে সে খুব মানসিক চাপের মধ্যে আছে।

এসএম/আওয়াজবিডি

ads