যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮৯৫, আক্রান্ত ৬৪ হাজার

এক নীরব যুদ্ধের বিরুদ্ধে আশার বাণী শোনালেন নিউইয়র্ক রাজ্য গভর্নর

ক্যুমো

এক নীরব কান্নার যুদ্ধের মধ্যে আছে গোটা বিশ্ব। যে যুদ্ধ আজ কোন দেশের বিরুদ্ধে নয়, যে যুদ্ধ কোন ব্যক্তিকে কেন্দ্র করে নয়। যে যুদ্ধ নিজেকে রক্ষা করা, যে যুদ্ধ এক অদৃশ্য শত্রুর বিরুদ্ধে! এই যুদ্ধের নাম করোনাভাইরাস(কোভিড-১৯)।

মরণব্যাধি এই রোগে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটি সবচেয়ে বেশি আজ বিপর্যস্ত। আতঙ্ক, উৎকণ্ঠায় জনজীবন।বর্তমানে নিউইয়র্কে আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ হাজার ছাড়িয়েছে এবং মারা গেছেন ২৮৫জন।সেই সময় কিছুটা হলেও আশার বাণী শোনালেন রাজ্য গভর্নর।

বুধবার নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে নিউইয়র্ক রাজ্য গভর্নর এন্ড্রু ক্যুমো বলেছেন, লকডাউন নিষেধাজ্ঞার কারণে নিউইয়র্কে আক্রান্তের সংখ্যা আগের তুলনায় কিছুটা ধীর গতির।

বুধবার প্রেস ব্রিফিংয়ে একটি হিসাব তুলে ধরে ক্যুমো বলেন, গত রবিবারে যেখানে বলা হয়েছিল- প্রতি দুই দিনে আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুন হতে পারে, সেখানে আজ দেখা যাচ্ছে দ্বিগুন হতে লাগবে ৪.৭ দিন। এই অবস্থার উন্নতি ঘটাতে প্রত্যেককে নিজ ঘরে অবস্থান করার নির্দেশ দেন তিনি।

রাজ্য গভর্নর আরো বলেন, ওয়েস্টচেস্টার কাউন্টিতে মার্চ মাসের শুরুর দিকে করোনাভাইরাসে দেশটির সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার ছিল সেখানে সেই সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। আর এই নিয়ন্ত্রণের পেছনে কারণ ছিল নিউরোসেলে সবকিছু লকডাউন করে দেয়া।

নিউইয়র্কে সাহায্যের জন্য যেসব করতে হবে

করোনাভাইরাসে আমেরিকার ইতিহাসে বৃহত্তম নাগরিক সুবিধা সরাসরি জনগণের হাতে পৌঁছতে আরো কয়েক সপ্তাহ সময় লাগবে। আগের উদাহরণ থেকে বলা যায়, তিন সপ্তাহ এরআগে এসব সাহায্য পৌঁছানো কঠিন হয়ে পড়বে। ক্ষেত্র বিশেষে আরও বেশি সময় লাগতে পারে। জনপ্রতি ১২০০ করে ডলার পাবেন, যাদের বার্ষিক আয় ৭৫ হাজার ডলারের নীচে। স্বামী স্ত্রী বা দম্পতি মিলে পাবেন ২৪০০ ডলার। ১৭ বছরের প্রতি সন্তানের জন্য পাবেন ৫০০ ডলার। বার্ষিক আয় ৭৫ হাজার ডলার থেকে ৯৯ হাজার ডলার পর্যন্ত কমতে থাকবে এবং বছরে এককভাবে যারা ৯৯ হাজার ডলার আয় করেন, তাদের কোন সহযোগিতার যোগ্য বলেই বিবেচিত হবেন না। আমেরিকার ৯০ শতাংশ মানুষই ইতিহাসের সবচেয়ে বড় এ নাগরিক সুবিধা প্রাপ্তির যোগ্য হবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

সুবিধাগুলো পেতে ক্লিক করুন নিচের লিংকগুলোতে

Paid Family Leave 

SNAP (Food Stamps) ফুড স্ট্যাম্পের জন্য

NYC Department of Education
শিক্ষা কার্যক্রমে অংশ নেয়ার জন্য বিনামূল্যে ইলেক্ট্রনিক ডিভাইসের জন্য

ক্ষুদ্র ব্যবসায় সহযোগিতা ও ঋণ গ্রহণের জন্য ,
NYC Small Business HELP / Grant / Loan

কারো ঘরে ইন্টেরনেট না থাকলে বিনামূল্যে ইন্টারনেট পাওয়ার জন্য
To enroll, call Spectrum at 844-488-8395.

এসব ছাড়াও যাদের অভিবাসন কাগজপত্রে জটিলতা আছে, বৈধতার কাগজ পত্র নাই তারা নানা চ্যারিটিতে সাহায্যের আবেদন করতে পারবেন। এসব সহযোগিতার জন্য কোন অভিবাসন পরিচয় জিজ্ঞাসা করা হয় না অধিকাংশ ক্ষেত্রে।


*Catholic Charities Community Services, Archdiocese of New York Helpline at 1-888-744-7900.

*Immigrant and Refugee Services – Email [email protected] or call 212-419-3700. Call 888-NYC-WELL (888-692-9355)

নাগরিক সহযোগিতার অংশ হিসেবে কংগ্রেসের আইনে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের দেয়া ঋণের পেমেন্ট স্থগিত রাখা হয়েছে। কর্মহীনদের জন্য চারমাসের ভাতা প্রাপ্তই নিশ্চিত করা হয়েছে। এসবের বাইরে ক্ষুদ্র ব্যবসায় ঋণ দেয়া , এয়ারলাইন্স কোম্পানি সহ বড় শিল্প প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতার অর্থ আছে এ ফেডারেল অনুদানে। বাড়ির মালিকদের ফেডারেল ব্যাকড মর্টগেজের বিলম্ব ফি দুই মাসের জন্য স্থগিত রাখা হয়েছে। এজন্য বাড়ির মালিকদের ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করত হবে। ভাড়াটেদেরও দু'মাসের জন্য উচ্ছেদ করা যাবে না । তাদের ওপর বাড়ির মালিকরা বিলম্ব ফি আরোপ করতে পারবে না। চার মাসের মধ্যে বাড়ি ছেড়ে দিতে ভাড়াটেদের বলতে পারবে না। কর্মহীন লোকজনকে বেকারভাতা দেয়া দেয়া হচ্ছে। দ্রুতই এ ভাতার আবেদন প্রক্রিয়া করা হচ্ছে।সবেতন পারিবারিক ছুটি দেয়া হচ্ছে। খাদ্য নিরাপত্তার জন্য ফুড স্ট্যাম্পের আবেদন দ্রুততার সাথে মঞ্জুর করা হচ্ছে।

নিউইয়র্কের বাইরে গেলেই ১৪ দিনের স্বেচ্ছানির্বাসন

এদিকে নিউইয়র্ক থেকে বের হয়ে অন্য কোনো অঙ্গরাজ্যে গেলে প্রত্যেকেরই ১৪ দিনের স্বেচ্ছানির্বাসনে থাকতে হবে।

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস এ ঘোষণা দেয়। যুক্তরাষ্ট্রের করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নিয়োজিত সংস্থার দায়িত্বে থাকা ড. দেবোরাহ বার্কস এ কথা বলেন।

হোয়াইট হাউসে ব্রিফিংকালে বার্কস বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে ৫৬ শতাংশ আক্রান্ত মানুষ নিউইয়র্ক মেট্রো এলাকার।

এই মহামারী সম্পর্কে দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে পরামর্শদাতা ড. অ্যান্টনি ফাউসি বলেন, নিউইয়র্ক সিটি থেকে অন্য অঙ্গরাজ্যে যাওয়া প্রতি এক হাজারে একজন আক্রান্ত হচ্ছেন করোনাভাইরাসে।

নিউইয়র্ক সিটিতে অন্য অঞ্চলের তুলনায় আট থেকে দশগুণ বেশি সংক্রমণের হার। হোয়াইট হাউসে ব্রিফিংকালে বার্কস বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে ৫৬ শতাংশ আক্রান্ত মানুষ নিউইয়র্ক সিটির।

এই মহামারী সম্পর্কে দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে পরামর্শদাতা ড. অ্যান্টনি ফাউসি বলেন, নিউইয়র্ক সিটি থেকে অন্য অঙ্গরাজ্যে যাওয়া প্রতি এক হাজারে একজন আক্রান্ত হচ্ছেন করোনাভাইরাসে। নিউইয়র্ক সিটিতে অন্য অঞ্চলের তুলনায় আট থেকে দশগুণ বেশি সংক্রমণের হার।

২ ট্রিলিয়ন ডলারের নাগরিক সহযোগিতায় সমঝোতা সই

যুক্তরাষ্ট্রে সর্বশেষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪ হাজারের চেয়েও বেশি এবং মারা গেছেন ৮৯৫জন।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গতকাল মঙ্গলবার বলেছেন, তিনি শিগগিরই আমেরিকার সবকিছু আবার সচল করতে চান। প্রেসিডেন্ট জানেন, মৃতের সংখ্যা বাড়বে। অর্থনৈতিক চাঞ্চল্যের জন্য মধ্য এপ্রিলের মধ্যেই সবকিছু আবার সচল করার কথা বলছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। যদিও পরিস্থিতি মোটেই তেমন মনে হচ্ছে না।

হোয়াইট হাউস এবং সিনেট মিলে মঙ্গলবার মধ্যরাতের পর আমেরিকার ইতিহাসের সবচেয়ে বড় নাগরিক সহযোগিতার সমঝোতা হয়েছে। ২ ট্রিলিয়ন ডলারের এ নাগরিক সহযোগিতায় ৭৫ হাজার ডলারের নিচে বার্ষিক আয়ের লোকজনকে ১ হাজার ২০০ ডলারের এককালীন চেক দেওয়া হবে। চার মাসের জন্য বেকার ভাতা দেওয়া হবে সব কর্মহীনদের জন্য, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের সাহায্য করা হবে। বড় বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠানেও অর্থ সাহায্য যাবে। এ অর্থের নানামুখী প্রবাহ নিয়ে আমেরিকার অর্থনীতি আবার ঘুরে দাঁড়াবে—এমনটাই প্রত্যাশা করছেন আইনপ্রণেতারা।


শাহ আহমদ সাজ
শাহ আহমদ সাজ
https://www.awaazbd.net/author/awaaz-usa

শাহ আহমদ সাজ ১৯৮৭ সালে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় জন্মগ্রহন করেন। শিক্ষা জীবনের শুরু ঢাকার সানরাইজ প্রি ক্যাডেট এন্ড কলেজে। তারপর ২০০৪ সালে কুলাউড়ার জালালাবাদ হাইস্কুল থেকে এসএসসি, ২০০৬ সালে মদন মোহন কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। ২০০৭ সালে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ইংরেজি অনার্সে ভর্তি হন।এরপর ইনফরমেশন টেকনোলজিতে পড়ালেখার জন্য লন্ডনে পাড়ি জমান এবং ক্রাউন ইন্টারন্যাশনাল কলেজে ব্যাচেলর শেষ করেন। বর্তমানে সপরিবারের যুক্তরাস্ট্রে বসবাসরত শাহ আহমদ, ছাত্রজীবন থেকেই সাহিত্য ও সৃজনশীল সবধরনের কাজের সাথে জড়িত ছিলেন। ২০১৬ সাল থেকে আওয়াজবিডি ও সাপ্তাহিক আওয়াজবিডির প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশের দায়িত্ব পালন করছেন।শাহ আহমদ বাংলাদেশ ডন-এর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক।

mujib_100
ads
আমাদের ফেসবুক পেজ
সংবাদ আর্কাইভ