কোন উত্তেজনা নয়, শান্তি বজায় রাখুন: সেলিম ওসমান

সেলিম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ওলামাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, আমি আপনাদের সকলের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি আপনারা আমাদের দুই ভাইয়ের উপর আস্থা রেখেছেন। আপনারা একটি ভাল কাজ করে দেখিয়েছেন। ইসলাম শান্তির ধর্ম। কোন বিশৃঙ্খলা কাম্য নয়। যতদিন বাঁচবো আপনাদের সাথে নিয়ে শান্তির জন্য কাজ করবো।

বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাবে নারায়ণগঞ্জের ওলামা পরিষদের নেতৃবৃন্দদের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আপনারা যেমন ভবিষ্যত প্রজন্মের কথা চিন্তা করে এমন একটি প্রশংসনীয় কাজ করেছেন। ঠিক তেমনি ভবিষ্যত প্রজন্মকে সঠিক পথ দেখাতে আপনারা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে তাদের সাথে কথা বলতে পারেন। তাদেরকে ইসলামের আলোকে বিভিন্ন দিক নিদের্শনা দিতে পারেন। কীভাবে রোজা রাখতে হবে, কীভাবে এবাদত করতে হয়। কোন কাজটা ইসলামে হারাম করা হয়েছে।

তিনি বলেন, কোন উত্তেজনা নয় আপনারা নারায়ণগঞ্জে শান্তি বজায় রাখুন। আমিও আপনাদের সাথে একমত। নারায়ণগঞ্জ শহরের ওই জায়গায় এমন একটি প্রতিষ্ঠান চলতে দেওয়া হবে না। যা কি-না আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম অপরাধমূলক কাজের দিকে উৎসাহিত করবে। ব্লু-পেয়ার ওই বারটি স্থায়ীভাবে বন্ধ করতে হবে এবং ভবিষ্যতে যাতে এমন প্রতিষ্ঠান গড়ে না উঠে সেই ব্যাপারে সজাগ দৃষ্টি রাখার জন্য আমি নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে অনুরোধ রাখছি।

চাষাঢ়ার মদের বার বন্ধের বিষয়ে সেলিম ওসমান বলেন, আপনারা আন্দোলনে নামার আগে প্রথমে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করা উচিত ছিল। তাদের প্রশাসনের সিদ্ধান্ত এবং ব্যবস্থা গ্রহণে অনেক সুবিধা হতো। পত্রিকায় দেখেছি আপনারা এ সমস্যা সমাধানের জন্য নারায়ণগঞ্জ-৪ ও ৫ আসনের সংসদ সদস্যের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। গতকাল আমি আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদলকে সাথে নিয়ে পুলিশ সুপারের সাথে আলোচনা করেছি। সেখানে বলেছি যদি আপনারা মদ বিক্রির প্রমাণ পান তাহলে ব্যবস্থা নিবেন। উনারা ব্যবস্থা নিয়েছেন। আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

তিনি আরও বলেন, আমি বলবো ওই প্রতিষ্ঠানটি একটি ট্রেড লাইসেন্স নিয়েছে। রেস্টুরেন্ট ব্যবসা করবেন বলে। আর ট্রেড লাইসেন্সটি দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। যখন মদ বিক্রির অভিযোগ উঠলো তখন সিটি কর্পোরেশন থেকে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হলোনা। যেখানে রাতের আধারে বিনা নোটিশে ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করে দেয় উনারা। সেখানে উনারা কেন মদের বারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করলেন না। সাধারণ কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতে গেলে চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সদস্য হতে হয়, তারা সেটি করেননি এমনকি কোন আবেদনও করেননি।

চাষাঢ়ায় ব্লু-পেয়ার রেস্টুরেন্টের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করে সাময়িক বন্ধ করে দেওয়ায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরকে ধন্যবাদ জানিয়ে, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ ও দোয়া করেছেন ওলামা পরিষদ নেতৃবৃন্দরা। সেই সাথে উক্ত বারটি স্থায়ীভাবে বন্ধ ঘোষণা এবং ভবিষ্যতে নারায়ণগঞ্জ শহরের কোথাও এমন কোন প্রতিষ্ঠান যাতে হতে না পারে সেজন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য ও নারায়ণগঞ্জের প্রশাসনের কাছে দাবি রেখেছেন তারা।

ডিআইটি মসজিদের খতিব ও হেফাজতে ইসলাম নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মাওলানা আব্দুল আউয়ালের সভাপতিত্বে মত বিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মো. বাদল।

উপস্থিত ছিলেন, জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক আবুল জাহের, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান, হেফাজতে ইসলাম নারায়ণগঞ্জ জেলা সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফেরদাউসুর রহমানসহ প্রায় ৩ শতাধিক ওলামাবৃন্দ।

এসএম/আওয়াজবিডি


mujib_100
ads
আমাদের ফেসবুক পেজ
সংবাদ আর্কাইভ