ট্রাম্প নারীদের জন্য সমস্যা

ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে ঘিরে আলোচনায় দেশটির মফস্বল অঞ্চলগুলো। যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যার বেশিরভাগই মফস্বলের হওয়ায় আসন্ন নির্বাচনে বড় ফ্যাক্টর হয়ে উঠেছেন এসব অঞ্চলের ভোটাররা।

বিশেষ করে মেট্রোপলিটের বাইরের প্রায় ২০ শতাংশ ভোটার সংখ্যালঘু হওয়ায় তাদের মতামত বড় ধরণের প্রভাব ফেলতে পারে। ফলে চূড়ান্ত ফলাফলে ব্যবধান তৈরি করে দিতে পারেন এই মফস্বলের ভোটাররাই।

পেনসিলভেনিয়ার উপকণ্ঠের শহরের জেমি প্যারাপটো। নারবার্থের এই নারী জো বাইডেনের সমর্থক। অথচ গত নির্বাচনে তিনি ভোট দিয়েছিলেন ট্রাম্পকে। জো বাইডেনের এই সমর্থক বলেন, ট্রাম্প নারীদের জন্য সমস্যার সৃষ্টি করেছেন। বিশেষ করে মফস্বলের নারীদের জন্য। তার সব উন্নয়ন শুধু, শহরের শ্বেতাঙ্গ নারীদের জন্যই বরাদ্দ।

যুক্তরাষ্ট্রের মোট জনসংখ্যার ৫২ শতাংশেরই বসবাস মফস্বল অঞ্চলে। ফলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বড় ফ্যাক্টর হয়ে উঠেছেন এই মফস্বলের ভোটাররাই। এদিকে এসব এলাকার জনসংখ্যার প্রায় ৭৮ শতাংশ শ্বেতাঙ্গ। তবে সংখ্যালঘু ভোটারের সংখ্যা প্রায় ২০ শতাংশ। ধারণা করা হচ্ছে এসব ভোটাররাই ব্যবধান গড়ে দিতে পারেন নির্বাচনের ফলাফলে।

অন্যদিকে অর্থনৈতিক সংকটের কারণে যুক্তরাষ্ট্রে বেকারত্বের হার প্রায় ৮ শতাংশ। ২০২১ অর্থবছর শেষে এক ট্রিলিয়ন ডলার অর্থনৈতিক সংকোচনের মুখে পড়তে পারে দেশটি। এরইমধ্যে গৃহনির্মাণ খরচ বেড়েছে ১১ শতাংশের বেশি। যা গত ১৪ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। আর এ সংকটের বড় ধাক্কার বেশিরভাগই পড়বে মফস্বলগুলোতে। এ বিষয়গুলোই প্রভাব ফেলবে নির্বাচনে।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের এক সমর্থক সুজানে ব্লেড জানান, আমি ট্রাম্পকেই ভোট দেবো। কারণ তার সাথে যুক্তরাষ্ট্রের যে নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে সেটা অন্য প্রার্থীর নেই। এই দেশকে কেউ যদি এগিয়ে নিতে চায় তো সেটা ট্রাম্পই পারবেন।

এসএম/আওয়াজবিডি 


অনলাইন ডেস্ক
অনলাইন ডেস্ক
https://www.awaazbd.net/author/awaazbdonlinenews

অনলাইন ডেস্ক

mujib_100
ads
আমাদের ফেসবুক পেজ
সংবাদ আর্কাইভ