গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় এরশাদকে স্মরণ

আওয়াজবিডি ডেস্ক
রেজওয়ান কবির রনি, রংপুর ব্যুরো
১৪ জুলাই ২০২০, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ণ
২৪২
শ্রদ্ধা

জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে রংপুর মহানগর ও জেলা জাতীয় পার্টি আয়োজিত কোরআন খতম,আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলসহ নানা আয়োজনে অংশগ্রহণ করেছে হাজারো এরশাদ ভক্ত।

রংপুরের পল্লীনিবাসে তার সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে স্বাস্থবিধি মোতাবেক ও স্বল্প পরিসরের আয়োজনেও ছিল ভক্তদের চাপ।৬৮ হাজার গ্রামবাংলার নেতা পল্লীবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানাতে রংপুর বিভাগের গ্রাম অঞ্চলগুলো থেকে তাদের প্রিয় নেতাকে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিল দিনমজুর,কৃষকসহ বিভিন্ন শ্রেনীপেশার মানুষ।

রাত ১২:০১ মিনিটে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।পরে সকাল ৬টা থেকে শুরু হয় কোরআন খতম, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল।

বেলা বাড়ার সাথে সাথে "রংপুরের মাটি এরশাদের ঘাটি" মুহুর্মুহু স্লোগানে মিছিল নিয়ে আসছিল জাতীয় পার্টি ও অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মী।

এছাড়া শিশু-কিশোর আবাল বৃদ্ধ বনিতা ফুল হাতে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিল তাদের প্রিয় নেতার সমাধিস্থল পল্লী নিবাসে।বেলা ১১ টায় জাপার কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এসে জিএম কাদেরের নেতৃত্বে সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

পরে রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও ইউনিটের জাতীয় পার্টি, জাতীয় ছাত্রসমাজ, যুবসংহতি, স্বেচ্ছাসেবক পার্টি,মহিলা পার্টি,মটর শ্রমিক পার্টিসহ সকল অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী শ্রদ্ধা জানান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জাপা চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা, অতিরিক্ত মহাসচিব ব্যারিস্টার শামিম হায়দার পাটোয়ারী, রংপুর সিটি মেয়র ও জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাসহ রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও ইউনিটের নেতৃবৃন্দ।

আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করে জিএম কাদের বলেন,এরশাদের স্বাস্থ্যনীতি বাস্তবায়ন না হওয়ায় স্বাস্থ্যখাত ভেঙে পড়েছে।যারা এরশাদের মৃত্যুর পর ভেবেছিল জাতীয় পার্টি বিলীন হয়ে যাবে, নেতৃত্ব শূন্য হবে তারা এখন দেখছে এরশাদের প্রতি রংপুরবাসী ও দেশবাসীর ভালোবাসায় এই জাতীয় পার্টি আরও বেশি সুশৃঙ্খল, সুসংহত ও ঐক্যবদ্ধ ।এরশাদের অপূর্ণ স্বপ্ন বাস্তবায়নে তার আদর্শে বলীয়ান হয়ে সকল নেতাকর্মীদের একযোগে কাজ করার আহবান জানান তিনি।

দলের মহাসচিব ও বিরোধীদলীয় চীফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেছেন,যশোর ও বগুড়ার উপচির্বাচনে ভোটচুরির মহোৎসব চলছে।পল্লীবন্ধু এরশাদের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নির্বাচন পেছাতে ইসিকে অনুরোধ করা হলেও তারা নির্বাচন পেছায়নি।সেখানে গিয়ে দেখেন তাবেদার ইসির অধীনে এই নির্বাচনে ভোট চুরির মহোৎসব চলছে। যারা আজকে এই নির্বাচন পেছায়নি তাদের অনেকেই এরশাদের হাতে চাকরি নিয়েছেন তার গোলামি করেছেন।সারাদেশে বানভাসি মানুষদের পাশে দাঁড়াতে দলের নেতাকর্মীদের অনুরোধ করেন তিনি।

আয়োজনের সভাপতি ও সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন,হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ শুধুমাত্র একজন শাসক ছিলেন না তিনি একজন দার্শনিক ও ছিলেন।তার রুপরেখা দেশে বাস্তবায়িত হলে ক্ষমতার কুক্ষিগতকরন ও দুর্নীতি, লুটপাট কমে যাবে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৪ই জুলাই ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন এরশাদ।পরে নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে ও রংপুরবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে ওসিয়তকৃত পল্লীনিবাসেই সমাহিত হন সাবেক এই সেনাপ্রধান।

ads