ব্যাংকসহ আর্থিক খাতে নিষিদ্ধ হলেন ফরাছত আলী

ফরাছত আলী

অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে আড়াই বছর আগে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদ ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ফরাছত আলী। বাংলাদেশ ব্যাংকের হস্তক্ষেপে সে সময় চতুর্থ প্রজন্মের ব্যাংকটির চেয়ারম্যান পদ ছাড়তে হয়েছিল তাকে।

তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল পরিচালকদের স্বাক্ষর জাল করে ঋণ প্রস্তাব অনুমোদন, বাংলাদেশ ব্যাংককে মিথ্যা তথ্য প্রদানসহ জাল-জালিয়াতির। দীর্ঘ অনুসন্ধান ও শুনানি শেষে অভিযোগগুলো প্রমাণিত হওয়ায় এবার ফরাছত আলীকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এ নিষেধাজ্ঞার ফলে আগামী দুই বছর তিনি দেশের কোন ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক পদে থাকতে পারবেন না। এনআরবিসি ব্যাংকে পাঠানো এক চিঠিতে এ নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রসঙ্গত, ২০১২ সালে লাইসেন্স পাওয়া ব্যাংকগুলোর একটি এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক। এ ব্যাংকটির মূল উদ্যোক্তা ছিলেন ফরাছত আলী। ব্যাংকটির প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি। কিন্তু যাত্রা শুরুর তিন বছর পার না হতেই অনিয়ম-দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে এনআরবিসি ব্যাংকের পরিচালক ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ।

এ নিয়ে পরিচালকরা দু’গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়ে। ব্যাংকটির আর্থিক পরিস্থিতির অবণতি হলে হস্তক্ষেপ করে বাংলাদেশ ব্যাংক। অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক অপসারিত হন ব্যাংকটির তৎকালীন ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেওয়ান মুজিবুর রহমান। এমডি অপসারনের পর ২০১৭ সালের ১০ ডিসেম্বর ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদও পুর্নগঠন করা হয়। পদত্যাগে বাধ্য হন ফরাছত আলী। চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেন তমাল পারভেজ।

অনলাইন ডেস্ক
অনলাইন ডেস্ক
https://www.awaazbd.net/author/oeazq8
ads