নতুন নাগরিক প্রণোদনা আসতে পারে আগস্টে

২৯১
ট্রাম্প
ছবি: রয়টার্স

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ব্যবসায়ীদের জন্য ফেডারেল প্রণোদনা আইনের পিপিপি (পে চেক প্রোটেকশন প্রোগ্রাম) কর্মসূচি বাড়ানোর আইনে স্বাক্ষর করেছেন। কংগ্রেসের সর্বসম্মতিতে অনুমোদনের পর ৪ জুলাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এতে স্বাক্ষর করায় তা আইনে পরিণত হয়েছে।

এর ফলে ব্যবসায়ীরা এ কর্মসূচির সুযোগ নেওয়ার জন্য আগামী ৮ আগস্ট পর্যন্ত সময় পাবেন। গত ৩০ জুন এই কর্মসূচির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। জানা গেছে, ব্যবসায়ীদের সাহায্য করার জন্য নাগরিক প্রণোদনার এ তহবিলে এখনো ১৩০ বিলিয়ন ডলার অব্যবহৃত রয়েছে।

গত মার্চ মাসের শেষ দিকে নাগরিক সহযোগিতার মূল আইনে দুই ট্রিলিয়ন ডলার অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল। করোনা বিপর্যয়ে দেশজুড়ে লকডাউনের পর ব্যবসা-বাণিজ্য ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য কর্মসূচিটি চালু করা হয়। পিপিপি কর্মসূচির শুরুতে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। দেশের বড় ব্যবসায়ীরা আগেভাগেই অর্থ অনুমোদন পেয়ে গেলে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় ওঠে।

বিশেষ করে প্রান্তিক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায় পিপিপি কর্মসূচি ব্যর্থ হচ্ছে বলে সমালোচনা শুরু হয়। পরে এ কর্মসূচিতে দ্বিতীয় দফা বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রশাসনিক নানা সিদ্ধান্তের মাধ্যমে এ কর্মসূচি অল্প সময়ে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ফেডারেল সরকারের স্মল বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন দ্রুত এ খাতের অর্থ বরাদ্দ শুরু করে। গত জুন মাসের মধ্যেই ৫২০ বিলিয়ন ডলারের অর্থ ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

এ অর্থের একটি অংশ ব্যবসায়ীদের ফেরত দিতে হবে না। কর্মীদের কাজে ফিরিয়ে নিয়ে আসার পর অনুদানের একটি অংশ তাঁদের মজুরি হিসেবে ব্যয় করার শর্ত দেওয়া আছে। এই কর্মসূচি চালু হওয়ার পর বিপুলসংখ্যক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, বিশেষ করে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা তাঁদের ব্যবসা লকডাউনের পর চালু করার প্রয়াস পেয়েছেন।

করোনাভাইরাস স্টিমুলাস তহবিল নিয়ে আরেকটি আইন প্রস্তাব কংগ্রেসে গ্রহণ করা হয়েছে। এ আইন প্রস্তাব নিয়ে সিনেট ও হোয়াইট হাউজের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা চলছে প্রায় দুই মাস ধরে। এ আইন প্রস্তাবে স্থানীয় সরকারের জন্য সরাসরি অর্থের জোগান দেওয়াসহ করদাতা নাগরিকদের জন্য ১ হাজার ২০০ ডলারের সরাসরি অনুদানের কথা বলা আছে। রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত সিনেটে নতুন নাগরিক সহযোগিতা নিয়ে রক্ষণশীলদের বৈরী অবস্থান থাকায় আইনপ্রণেতারা একমত হতে পারছেন না।

করোনা বিপর্যয়ের পর অর্থনৈতিক সমস্যায় থাকা নাগরিকদের জন্য নতুন প্রণোদনার প্রস্তাবটি এ কারণেই ঝুলে আছে। প্রতিনিধি পরিষদে পাস করা নতুন নাগরিক সহযোগিতার প্রস্তাবের পাল্টা হোয়াইট হাউজ থেকে বলা হয়েছে, আগের প্রণোদনা অর্থের ব্যবহার ও এর প্রভাব সম্পর্কে ধারণা পাওয়ার চেষ্টা করছেন তাঁরা। সিনেটে রিপাবলিকানরা আরেকটি প্রস্তাব নিয়ে কাজ করছেন।

এসবের সমঝোতায় নতুন আরেকটি প্রণোদনা তহবিল আসছে, এমন নিশ্চিত হলেও সঠিক সময় সম্পর্কে এখনো কেউ কিছু বলতে পারছেন না। তবে তা আগস্ট মাসের আগেই হচ্ছে বলে সম্ভাবনার কথা বলছে আমেরিকার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম।

আওয়াজবিডি ডেস্ক
আওয়াজবিডি ডেস্ক
https://www.awaazbd.net/author/awaaz-news

অনলাইন ডেস্ক

ads