ভার্চুয়াল কোর্টে ৮ম দিনে জামিনের রেকর্ড

২১৪
ভার্চুয়াল কোর্টে জামিন

করোনার মধ্যে জামিনের রেকর্ড গড়ল ভার্চুয়াল কোর্ট। সুপ্রিম কোর্টের তথ্য মতে, ৮ কার্যদিবসে সাড়ে ১৮ হাজারেরও বেশি কারাবন্দি জামিন পেয়েছেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা জানিয়েছেন, দাগী আসামিদের জামিন দেয়া হয়নি। করোনা পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে হত্যা, ধর্ষণ মামলার আসামিরা যেন জামিনে বের হতে না পারে, সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়েছেন মানবাধিকার আইনজীবীরা।

করোনা মহামারিতে বিচারের দুয়ার খুলতে ১১ মে থেকে সারা দেশে চালু হয় ভার্চুয়াল আদালত। এ মাধ্যমে বর্তমানে দেশে প্রায় সাড়ে তিনশ কোর্ট চলছে। সুপ্রিম কোর্টের তথ্য বলছে, এসব কোর্ট থেকে ৮ কার্যদিবসে ১৮ হাজার ৫শ ৮৫ কারাবিন্দর মুক্তির আদেশ দিয়েছেন আদালত।

এরমধ্যে শতাধিক নারী ও শিশু নির্যাতন দমন মামলার আসামি রয়েছেন। যাদের অধিকাংশ আসামিই মুক্তি পেয়েছেন।

নিয়মিত আদালতের চেয়ে ভার্চুয়ালের আদালতে জামিনের হার বেশি কেনো জানতে চাইলে এক আইনজীবী জানান, ধারণ ক্ষমতার চেয়ে কারাগারে আসামির সংখ্যা বেশি হওয়া এ জামিন কিছুটা হলেও স্বস্তি দিবে।

আইনজীবী অ্যাড. খুরশীদ আলম বলেন, মানুষ তার অধিকার চর্চা করে আইনি লড়াইয়ে জামিন পেয়েছেন। অন্যদিকে ৩ হাজারের বেশি জেল হাজতির জায়গা করে দেয়া হল। করোনার যে আশঙ্কা তা ছোট হয়ে আসলো।

মানবাধিকারকর্মীরা বলছেন, হত্যা, ধর্ষণ মামলার আসামিরা যাতে মুক্তি না পায়, সে বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষকে পদক্ষেপ নিতে হেব।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা বলছেন, দাগী আসামিদের নয়, লঘু অপরাধীদের জামিন দেয়া হয়েছে।

পাবলিক প্রসিকিউর অ্যাড. আব্দুল্লাহ আবু বলেন, গুরুত্বপূর্ণ কোনো মামলায় জামিন হচ্ছে না, লঘু অপরাধে যারা দীর্ঘদিন রয়েছে তাদের জামিন দেয়া হচ্ছে।

এছাড়া সরকারি সিদ্ধান্তে দুই শতাধিক কারাবন্দি মুক্তি পেয়েছেন। জামিনে মুক্তি পাওয়া আসামিরা আবার যেন অপরাধে জড়িয়ে না পড়ে বা মামলাকে প্রভাবিত না করে সে বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ সংশ্লিষ্টদের।

এসএম/আওয়াজবিডি


অনলাইন ডেস্ক
অনলাইন ডেস্ক
https://www.awaazbd.net/author/awaazbdonlinenews

অনলাইন ডেস্ক

mujib_100
ads
আমাদের ফেসবুক পেজ
সংবাদ আর্কাইভ